স্যাটেলাইটের মাধ্যমে পরনির্ভরশীলতা দূর হয়েছে : প্রধানমন্ত্রী

0
23

দেশের সব টেলিভিশন চ্যানেল এখন বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ এর মাধ্যমে সম্প্রচার কার্যক্রম চালাবে। এই স্যাটেলাইটের মাধ্যমে দেশ অনন্য উচ্চতায় পৌঁছেছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, স্যাটেলাইটের মাধ্যমে পরনির্ভরশীলতা দূর হয়েছে। এর ফলে টেলিভিশন সম্প্রচারের ক্ষেত্রে দেশের বাইরে আর কোনো টাকা পাঠাতে হবে না। আজ বুধবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁওয়ে আয়োজিত অনুষ্ঠানে বাণিজ্যিক এ সম্প্রচার কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন শেষে তিনি এ কথা জানান।শেখ হাসিনা বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের মধ্য দিয়ে আমি মনে করি, বিশ্বের যতগুলো দেশের নিজস্ব স্যাটেলাইট আছে, আমরা সেই ধরনের একটা উচ্চতায় পৌঁছে যেতে পেরেছি।’ তিনি বলেন, ‘আজ আমি খুবই আনন্দিত যে দেশের সব টিভি চ্যানেল বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের মাধ্যমে বাণিজ্যিক কার্যক্রম শুরু করেছে। আপনারা বাণিজ্যিকভাবে এই সম্প্রচার শুরু করার যে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন এবং চুক্তি করেছেন, এটা আমি বলবো, টিলিভিশনের সম্প্রচারের ক্ষেত্রে একটা নতুন মাত্রা যোগ হলো। আর এর মধ্য দিয়ে নতুন অগ্রযাত্রা শুরু হলো। ‘সেই সাথে সাথে আরেকটা বিষয় হলো- সকলে কিন্তু বিদেশি স্যাটেলাইট ভাড়া করে যে টাকাটা খরচ করতেন সেটাও কিন্তু বেঁচে গেল’, যোগ করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি আরও বলেন, ‘আশা করি ইলেকট্রনিক সম্প্রচার মাধ্যমগুলোর আরও অনেক বাধা দূর হবে। পরনির্ভরশীলতা থাকবে না।’ নিজের পায়ে দাঁড়ানোর সুযোগ পেলাম উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা আশপাশের দেশগুলোর কাছেও অফার করেছি। তারাও চাইলে ভাড়া নিতে পারবে এর ট্রান্সপন্ডার। এখান থেকেও আমরা অর্থ উপার্জন করতে পারব। এই স্যাটেলাইটের মাধ্যমে প্রত্যন্ত অঞ্চলে অনেক সহজে বার্তা পৌঁছাবে।’ বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্য দিয়ে দেশ আত্মপরিচয়ের সুযোগ হারিয়েছিল জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর জনগণ বাঁচার সুযোগ পেয়েছে। বাংলাদেশ স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেড জানিয়েছে, স্যাটেলাইটটি ব্যবহারের ফলে বছরে আয় হবে প্রায় ১০০ কোটি টাকা। উল্লেখ্য, ফ্রান্সের প্রস্তুতকারি প্রতিষ্ঠান থ্যালেস অ্যালেনিয়া স্পেস গত নভেম্বর মাসে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ এর নিয়ন্ত্রণ কর্তৃত্ব বিসিএসসিএল’র কাছে হস্তান্তর করে। ২০১৮ সালের ১২ মে ফ্লোরিডা থেকে এটি মহাকাশে উৎক্ষেপণ করা হয়। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের মাধ্যমে বিশ্বের ৫৭তম দেশ হিসেবে স্যাটেলাইটের অভিজাত ক্লাবে প্রবেশ করে বাংলাদেশ। নিজস্ব স্যাটেলাইটের মালিক হতে বাংলাদেশের ২ হাজার ৯০২ কোটি টাকা খরচ হয়।

LEAVE A REPLY