অনলাইন ও দূরশিক্ষণ ডিগ্রি গ্রহণযোগ্য নয়

0
23

পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে অনলাইন ও দূরশিক্ষণের মাধ্যমে ডিগ্রি গ্রহণযোগ্য নয়। পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগ, পদোন্নতি ও পদোন্নয়নের যুগোপযোগী নীতিমালা প্রণয়নের ক্ষেত্রে ন্যূনতম যোগ্যতা নির্ধারণের এমন নির্দেশিকা প্রকাশ করেছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি)। পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘অভিন্ন নিয়োগ ও পদোন্নতি নীতিমালা’ প্রণয়নের দীর্ঘদিনের প্রক্রিয়াও চূড়ান্ত হয়নি। পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা একটি অভিন্ন পে-স্কেলে বেতন-ভাতা পান। কিন্তু নিয়োগ ও পদোন্নতি নীতিতে বিশ্ববিদ্যালয় ভেদে ভিন্নতা রয়েছে। ২০১৫ সালে জাতীয় পে-স্কেল ঘোষণার পর বিভিন্ন ইস্যুতে ২৭ ক্যাডার এবং প্রকৃচির মতো বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকরাও আন্দোলন করেন। তৎকালীন অর্থমন্ত্রীকে প্রধান করে বেতন-ভাতা বৈষম্য দূরীকরণ সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি গঠন করেছিল সরকার। ওই কমিটির সঙ্গে আলোচনার পরিপ্রেক্ষিতে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় অভিন্ন শিক্ষক নীতিমালা তৈরির সিদ্ধান্ত হয়।শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি বলেছেন, একেক বিশ^বিদ্যালয়ের নিয়োগ নীতিমালা একেক রকম। এ জন্য আমরা একটি কাঠামো তৈরি করছি। এ কাঠামো কোনো সরকারি নির্দেশ নয়, বরং এক ধরনের নির্দেশিকা হিসেবে কাজ করবে। একে ন্যূনতম যোগ্যতা হিসেবে ধরে বিশ^বিদ্যালয়গুলো তাদের নীতিমালা তৈরি করবে। এ প্রসঙ্গে একাধিক পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক জানান, দেশের সব বিশ^বিদ্যালয়ের চরিত্র এক নয়। সুতরাং একই নীতিমালায় নিয়োগ হতে পারে না। ভিন্ন ভিন্ন বিষয় ও অনুষদের ক্ষেত্রে শিক্ষক নিয়োগের যোগ্যতারও তারতম্য হতে পারে। নীতিমালায় কী কী সমস্যা এগুলো লিখিত আকারে শিক্ষামন্ত্রীর কাছে জমা দেওয়া হবে। ইউজিসির নির্দেশিকায় উল্লেখযোগ্য শর্ত হচ্ছে- বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনো বিভাগে প্রভাষক নিয়োগের জন্য প্রয়োজনে লিখিত পরীক্ষার মাধ্যমে শর্টলিস্ট তৈরি করে সাক্ষাৎকারের মাধ্যমে নিয়োগ করা যাবে। তবে অনলাইন ও দূরশিক্ষণের মাধ্যমে ডিগ্রিপ্রাপ্ত প্রার্থীদের কোনো বিভাগের জন্য বিবেচনা করা যাবে না। এসএসসির সমমান এবং এইচএসসির সমমান পরীক্ষায় জিপিএ-৫.০০ এর মধ্যে ন্যূনতম জিপিএ ৪.৫০ থাকতে হবে। কলা অনুষদভুক্ত নৃত্যকলা, চারুকলা, সংগীত ও নাট্যকলা বিভাগে প্রভাষক নিয়োগের ক্ষেত্রে মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিকে যৌথভাবে ন্যূনতম জিপিএ ৭.০০ থাকতে হবে। তবে কোনো পর্যায়ে জিপিএ ৩.০০ এর কম গ্রহণযোগ্য নয়। ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং/সমমান পরীক্ষায় পাস করা আবেদনকারী এসএসসি ও সমমান এবং ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং সমমান উভয় পরীক্ষায় মোট জিপিএ-৯.০০ এর মধ্যে ন্যূনতম ৮.০০ থাকতে হবে। ইউজিসির অনুমতিক্রমে দেশি-বিদেশি প্রথিতযশা ব্যক্তিকে সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বিশিষ্ট অধ্যাপক (ডিস্টিংগুইশড প্রফেসর) হিসেবে নিয়োগ করতে পারবে। এমনকি বিশেষায়িত বিষয়ের ক্ষেত্রে ইউজিসির অনুমতিক্রমে দেশি-বিদেশি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষককে শিক্ষকতার বিভিন্ন ধাপে চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ করা যাবে।গ্রেড-১ এ পদোন্নয়ন : দ্বিতীয় গ্রেডপ্রাপ্ত অধ্যাপকদের মোট চাকরিকাল ন্যূনতম ২০ বছর এবং দ্বিতীয় গ্রেডের সর্বশেষ সীমায় পৌঁছানোর ২ বছর পর জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে গ্রেড-১ প্রাপ্ত হবে। তবে এ সংখ্যা মোট অধ্যাপকের ২৫ শতাংশের বেশি হবে না। গ্রেড-৩ থেকে গ্রেড-২ : অধ্যাপকদের গ্রেড-৩ থেকে গ্রেড-২ এ পদোন্নয়নের জন্য ন্যূনতম ৪ বছর চাকরি এবং স্বীকৃত কোনো জার্নালে বিষয়ভিত্তিক দুটি নতুন আর্টিকেল প্রকাশিত হলে জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে গ্রেড-২ এ পদোন্নয়ন হবে। অধ্যাপক : স্নাতকোত্তর ডিগ্রিধারীদের ক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে সহযোগী অধ্যাপক হিসেবে ন্যূনতম ১০ বছরসহ ন্যূনতম ২২ বছর সক্রিয় শিক্ষকতার অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। এমফিল ডিগ্রিধারীদের ক্ষেত্রে সহযোগী অধ্যাপক হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে ন্যূনতম ৭ বছরসহ ন্যূনতম ১৭ বছরের সক্রিয় শিক্ষকতার অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। পিএইচডি ডিগ্রিধারী প্রার্থীদের ক্ষেত্রে সহযোগী অধ্যাপক হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে ন্যূনতম ৫ বছরসহ ন্যূনতম ১২ বছরের সক্রিয় শিক্ষকতার অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। তবে সব ক্ষেত্রেই প্রার্থীদের স্বীকৃত কোনো জার্নালে (পিয়ার রিভিউড) ন্যূনতম ১২টি প্রকাশনা থাকতে হবে। সহযোগী অধ্যাপক হিসেবে ন্যূনতম ৬টি প্রকাশনা থাকতে হবে। একইভাবে প্রভাষক থেকে সহকারী অধ্যাপক, সহকারী থেকে সহযোগী অধ্যাপক পদে নিয়োগের জন্য একটি অভিন্ন শর্তাবলী যোগ করা হয়েছে। আলাদা আলাদা শর্ত যুক্ত হয়েছে ইঞ্জিনিয়ারিং, আর্কিটেকচার, নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা, মেডিসিন ও কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য। বর্তমানে অধ্যাপক পদে পদোন্নতি পেতে কোনো কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে একজন শিক্ষককে প্রায় ২৫ বছর পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয়। আবার কোনো কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে মাত্র ১১ বছরেই অধ্যাপক হওয়ার সুযোগ থাকে। কোথাও প্রভাষক পদে যোগ দিতে সংশ্লিষ্ট বিষয়ে অনার্স ও মাস্টার্স পর্যায়ে প্রথম শ্রেণি বাধ্যতামূলক। আবার কোথাও যে কোনো একটিতে প্রথম শ্রেণি থাকলেই হয়। অভিন্ন নীতিমালা হলে এমন পার্থক্য বন্ধ হবে।

LEAVE A REPLY