বুকে ব্যথা, কারাগার থেকে হৃদরোগ ইন্সটিটিউটে সম্রাট

0
22

‘ক্যাসিনো সম্রাট’ খ্যাত যুবলীগের ঢাকা মহানগর দক্ষিণের বহিষ্কৃত সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট বুকে ব্যথা অনুভব করায় তাকে কারাগার থেকে হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে। আজ মঙ্গলবার সকাল ৯টার পর তাকে জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউটে ভর্তি করা হয়। এর আগে ব্যথা অনুভব করলে সকাল সাড়ে ৭টায় সম্রাটকে প্রথমে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নেওয়া হয়। এরপর ঢামেক চিকিৎসকদের পরামর্শে তাকে জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটে নেওয়া হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের ডেপুটি জেলার মো. জাহিদ। তিনি জানান, সকাল সাড়ে ৭টায় বুকে ব্যথা অনুভব করায় ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের প্রধান কারারক্ষী মুজাহিদুল ইসলাম সম্রাটকে ঢামেকের জরুরি বিভাগে নিয়ে যান। পরে সেখানে থেকে চিকিৎসকদের পরামর্শে তাকে হৃদরোগ ইন্সটিটিউটে নেওয়া হয়। ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মাকসুদুর রহমান মাকসুদ জানান, সম্রাট গুরুতর অসুস্থ। তার শারীরিক অবস্থা আশঙ্কাজনক। এদিকে গতকাল সোমবার রাতে সম্রাটের বিরুদ্ধে অস্ত্র ও মাদক আইনের পৃথক দুই মামলায় ১০ দিন করে ২০ দিনের রিমান্ড আবেদন করেছে পুলিশ। এই রিমান্ড শুনানি আগামীকাল বুধবার ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে অনুষ্ঠিত হবে। রমনা থানা পুলিশ অস্ত্র ও মাদক আইনে মামলায় সম্রাটকে গ্রেপ্তার দেখানো-পূর্বক ১০ দিন করে ২০ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন। ঢাকা মহানগর হাকিম ইয়াসমিন আরা আসামি সম্রাটের উপস্থিতিতে গ্রেপ্তার দেখানোর আবেদন ও রিমান্ড শুনানির জন্য বুধবার দিন ধার্য করেন।উল্লেখ্য, গত রোববার বিকেলে কাকরাইলে সম্রাটের কার্যালয়ে অভিযান চালিয়ে মাদক, অস্ত্র ও ক্যাঙ্গারুর চামড়া উদ্ধার করে র‌্যাব। নিজ কার্যালয়ে পশুর চামড়া রাখার দায়ে ৬ মাস কারাদণ্ড দিয়ে কেরানীগঞ্জের কারাগারে পাঠানো হয় ঢাকা মহানগর দক্ষিণের বহিষ্কৃত সভাপতি সম্রাটকে। তার বিরুদ্ধে অস্ত্র ও মাদক আইনে রমনা থানায় দুটি মামলা হয়েছে। রোববার ভোর ৫টার দিকে সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে কুমিল্লায় অভিযান চালিয়ে সম্রাট ও তার ঘনিষ্ঠ সহযোগী এনামুল হক আরমানকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। আলোচিত যুবলীগ নেতা ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাট ঢাকার জুয়াড়িদের কাছে ‘ক্যাসিনো সম্রাট’ হিসেবে পরিচিত। সম্প্রতি রাজধানীতে ক্লাব ব্যবসার আড়ালে অবৈধ ক্যাসিনো পরিচালনার অভিযোগে র‌্যাবের হাতে ধরা পড়েন সম্রাটের ডান হাত হিসেবে পরিচিত যুবলীগ ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়া, রাজধানীর টেন্ডার কিং আরেক যুবলীগ নেতা জিকে শামীম। তারা গ্রেপ্তার হওয়ার পর জিজ্ঞাসাবাদে সম্রাটের অবৈধ ক্যাসিনো সাম্রাজ্য নিয়ে চাঞ্চল্যকর তথ্য বেরিয়ে আসে।

LEAVE A REPLY