দেশে নির্মিত বড় দুটি জাহাজ ভারতে রপ্তানি

0
2

একশ কোটি টাকায় দেশে নির্মিত দুটি বড় জাহাজ ভারতে রপ্তানি করেছে বাংলাদেশ। জেএসডব্লিউ সিংহগড় ও জেএসডব্লিউ লোহগড় নামে বাংলাদেশে তৈরি সবচেয়ে বড় দুটি জাহাজ রপ্তানি করেছে চট্টগ্রামের জাহাজ নির্মাণ প্রতিষ্ঠান ওয়েস্টার্ন মেরিন শিপইয়ার্ড লিমিটেড। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে গতকাল জাহাজ দুটি ভারতের ‘জিন্দাল স্টিল ওয়ার্কস’ নামের একটি প্রতিষ্ঠানকে হস্তান্তর করা হয়। সকালে পতেঙ্গা বোট ক্লাবের পাশে ওয়েস্টার্ন ক্রুজে এ হস্তান্তর অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি এবং ভারতের হাইকমিশনার রীভা গাঙ্গুলি দাশ।ওয়েস্টার্ন মেরিন শিপইয়ার্ড সূত্র জানায়, ২০১৫ সালে ভারতের জিন্দাল স্টিল ওয়ার্কস ওয়েস্টার্ন মেরিনকে চারটি জাহাজ নির্মাণের দায়িত্ব দেয়। এ প্রকল্পটি ভারত থেকে পাওয়া বাংলাদেশের বেসরকারি খাতে সর্বোচ্চ মূল্যের রপ্তানি আদেশ। এর মধ্যে প্রথম দুটি জাহাজ জেএসডব্লিউ রায়গড় ও জেএসডব্লিউ প্রতাপগড় ২০১৭ সালের অক্টোবর মাসে প্রতিষ্ঠানটির কাছে হস্তান্তর করা হয়। এবার জেএসডব্লিউটি সিংহগড় ও জেএসডব্লিউ লোহগড় হস্তান্তর করা হলো। প্রতিটি জাহাজের বিক্রয় মূল্য আনুমানিক ৫০ কোটি টাকা।বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুন্সি বলেন, বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ যে সম্পর্ক আছে তা এ জাহাজ শিল্পের মাধ্যমে আরও মজবুত হবে। বাংলাদেশ-ভারত বাণিজ্য নিয়ে অনেকে অনেক রকম কথা বলেছে। অথচ তারা বুঝতে পারেন না, আমরা যদি ১৩০ কোটির জনসংখ্যার দেশ ভারতকে আমাদের বাজার বানাতে পারি, তা হলে বাণিজ্যিকভাবে আমরাই লাভবান হব। ওয়েস্টার্ন মেরিন শিপইয়ার্ডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ক্যাপ্টেন শোহাইল হাসান বলেন, দুটি জাহাজের প্রত্যেকটি ১৩০০ কিলোওয়াট ও ৯০০ আরপিএম ইয়ানমার মেরিন ইঞ্জিন দ্বারা চালিত। যা শতভাগ লোডেড অবস্থায় সর্বোচ্চ ১০ নটিক্যাল মাইল গতিতে চলতে সক্ষম। আর জাহাজগুলো খনিজ লোহা ও কয়লা বহনের জন্য নির্মিত। ওয়েস্টার্ন মেরিন শিপইয়ার্ডের চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম বলেন, প্রতিটি জাহাজের ধারণ ক্ষমতা ৮ হাজার ডিডব্লিউটি (ডেডওয়েট টনেজ)। আট হাজার ডিডব্লিউটি ধারণ ক্ষমতাবিশিষ্ট কার্গো জাহাজ এর আগে কখনও বাংলাদেশে তৈরি হয়নি। এ দুটি জাহাজই এখন পর্যন্ত দেশে নির্মিত সবচেয়ে বড় জাহাজ।

LEAVE A REPLY