মাথাব্যথা যখন মাথাব্যথার কারণ

মাথাব্যথার সঙ্গে কমবেশি সবাই পরিচিত। তবে এটি কোনো রোগ নয়, রোগের উপসর্গ। এ উপসর্গ যেমন কোনো রোগের সঙ্গে সম্পৃক্ত হয়ে থাকে, তেমনি কোনো রোগের সম্পৃক্ততা ছাড়াও হতে পারে। মস্তিষ্কের প্রদাহ বা টিউমার সমস্যায় মাথাব্যথা হতে পারে; সাইনাসের কারণেও হতে পারে। চোখের বিভিন্ন অংশের প্রদাহ, যেমনÑ অপ্টিক নার্ভের প্রদাহ বা অপ্টিক নিউরাইটিস, ইউভিয়ার প্রদাহ বা ইউভিয়াইটিস, অ্যাকিউট গ্লুকোমা, সর্বোপরি দৃষ্টিজনিত কারণেও মাথাব্যথা হতে পারে। আবার কারণ ছাড়াই মাথাব্যথা দেখা দিতে পারে। মাইগ্রেনের ব্যথার বিশেষ কোনো কারণ নেই। এ ব্যথার সঙ্গে আরও কিছু উপসর্গ, যেমনÑ মাথা ঘোরা, ক্ষুধামান্দ্য, বমি ভাব, উজ্জ্বল আলো, উচ্চৈ শব্দ বা তীব্র গন্ধে এক ধরনের সংবেদনশীলতা কাজ করে। মাথাব্যথার বিষয়টি প্রথমদিকে খুব বেশি মনোযোগ আকর্ষণ করতে ব্যর্থ হয়। রোগীর অভিযোগ শুনে অনেক চিকিৎসক ব্যথানাশক ওষুধ দিয়ে চিকিৎসাপত্র দেন। রোগী যখন একই সমস্যা নিয়ে বারবার আসেন, চিকিৎসক তখনই ভাবনায় পড়েন। নতুন নতুন ওষুধ দিয়ে চিকিৎসা দেওয়ার চেষ্টা করেন। এ ক্ষেত্রে তিনটি বিষয় প্রাধান্য পায়। এক. মাইগ্রেনের সমস্যা; দুই. সাইনোসাইটিসের সমস্যা; তিন. দৃষ্টিজনিত সমস্যা। অর্থাৎ প্রথমে জেনারেল প্র্যাকটিসনার বা মেডিসিন বিশেষজ্ঞ; পরে নাক-কান-গলা রোগ বিশেষজ্ঞ বা চক্ষুরোগ বিশেষজ্ঞ। এরপরও আশানুরূপ ফল না পেলে তখন শুরু হয় পরীক্ষা-নিরীক্ষা, সিটিস্ক্যান, এমআরআই ইত্যাদি। আর এসব পরীক্ষায় অনেক সময় দেখা দেয় মস্তিষ্কের টিউমারের মতো ভয়াবহ চিত্র। বিলম্বিত হওয়ায় অনেক সময় এটি চিকিৎসা কঠিন করে তোলে। আবার বিপরীত চিত্রও পরিলক্ষিত হয়। যেমনÑ মাথাব্যথার স্বাভাবিক অবস্থা যেমন সাইনোসাইটস বা মাইগ্রেন বা দৃষ্টি সমস্যার মতো ইস্যু আমলে না নিয়ে সিটিস্ক্যান, এমআরআই নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়েন। আর এতে রিপোর্ট নরমাল এলে রোগী মনে করেন, অহেতুক খরচ করানো হয়েছে। এতে চিকিৎসক রোগীর সম্পর্কটি ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার ঝুঁকিতে পড়েন। যুক্তিযুক্ত হবে, রোগী যথন মাথাব্যথা নিয়ে আসবেন, তখন তার মাথাব্যথা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে হবে। কারণ রোগীর ইতিহাস থেকেই অনেকটা আঁচ করা যায় এটি মাইগ্রেন, নাকি সাইনোসাইটিস, না দৃষ্টি সমস্যার মতো কোনো বিষয়। লেখক : প্রাক্তন সহযোগী অধ্যাপক জাতীয় চক্ষুবিজ্ঞান প্রতিষ্ঠান ও হাসপাতাল চেম্বার : আইডিয়াল আই কেয়ার সেন্টার ৩৮/৩-৪, রিং রোড, শ্যামলী, আদাবর, ঢাকা। ০১৯২০৯৬২৫১২; ০১৮৪৭০৯২৬৯২